রাষ্ট্রদূত হত্যা: পুতিন, এরদোগানের প্রতিক্রিয়া

রাষ্ট্রদূত হত্যা: পুতিন, এরদোগানের প্রতিক্রিয়া

আন্তর্জাতিক 0 Comment

তুরস্ক-রাশিয়া সম্পর্ক নষ্ট ও সিরিয়ায় শান্তি স্থাপনের উদ্যোগ বানচাল করতেই, রুশ রাষ্ট্রদূতকে হত্যা করা হয়েছে। তুরস্কে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত আন্দ্রেই কারলভকে হত্যার ঘটনায়, এমন প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

একই ধরণের মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানও। তার অভিযোগের তীর দেশটির নির্বাসিত বিরোধী নেতা ফেতুল্লা গুলেনের প্রতি। হামলার নিন্দা জানিয়েছেন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোয়া ওলাঁদ, যুক্তরাজ্য এবং জার্মানি।

চলচ্চিত্রের কোনো দৃশ্য নয়। একটি চিত্র প্রদর্শনীতে বক্তৃতা রাখার মাঝপথেই, এভাবেই তুরস্কে রুশ রাষ্ট্রদূত আন্দ্রেই কারলভকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় বন্দুকধারী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চিত্র প্রদর্শনীতে ঢোকার পথে নিরাপত্তায় ছিল না কোনো আর্চওয়ে মেশিন।

হামলার মিনিট পনেরো পরই, পুলিশের গুলিতে নিহত হন হামলাকারী। তিনি নিজেও ছিলেন, তুরস্কের দাঙ্গা পুলিশের সদস্য। গুলি ছোড়ার আগে, আলেপ্পোকে ভুলো না, সিরিয়াকে ভুলো না বলে চিৎকার করছিলেন। হামলাকারীর সঙ্গে কোনো জঙ্গি গোষ্ঠীর যোগসাজশ ছিল কিনা তা, খোঁজার চেষ্টা করছে তদন্তকারীরা।

একে জঘন্য সন্ত্রাসী হামলা বলে মন্তব্য করেছেন, তুর্কি প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদ্রিম। রাশিয়ার সাথে তুরস্কের বন্ধুত্ব নষ্ট করতেই, এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে, অভিযোগ তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের। তিনি বলেন, “রাশিয়ার সাথে আমাদের যে সম্পর্ক তা মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যারা আমাদের এই সম্পর্ক নষ্ট করতে চায় তাদের আশায় গুড়েবালি। রাশিয়ার সাথে আমরা একসাথে কাজ করে যাবে। আমি এ বিষয়ে রুশ প্রেসিডেন্টের সাথে টেলিফোনে আলাপ করেছি। ঘটনা তদন্তে এক সাথে কাজ করতে সম্মত হয়েছেন তিনি।”

একই ধরনের মন্তব্য করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও। তার অভিযোগ, সিরিয়ার শান্তি ফেরানোকে বানচাল করতেই এই হামলা। তাঁরা ভাষায়, “সিরিয়ার সঙ্কট কাটাতে শক্তিশালী ভূমিকা পালন করছে রাশিয়া। তুরস্ক, ইরানসহ অন্য দেশগুলোও সিরিয়ায় শান্তি ফিরিয়ে আনার পক্ষে। তাই রাষ্ট্রদূতকে হত্যার এই ঘটনার জবাব আমরা দিতে পারি কেবল জোরালোভাবে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার মধ্য দিয়েই।”

২০১৫ সালে সিরিয়া-তুরস্ক সীমান্তে রুশ যুদ্ধবিমান ভূপাতিত হলে, তুরস্কের সাথে সম্পর্কে টানাপোড়েন তৈরি হয় রাশিয়ার। চলতি বছরের ২৭ জুন আরেকটি রুশ যুদ্ধবিমান ভূপাতিতের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে চিঠি দেয় তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। জোড়া লাগতে শুরু করে সম্পর্ক। গেলো ১৫ জুলাই তুরস্কের ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের পর, পশ্চিমা বিশ্বের সাথে তৈরি হওয়া দূরত্ব তুরস্ককে রাশিয়ার আরো কাছাকাছি নিয়ে যায়।

সূত্র : চ্যানেল ২৪

Category: Product #: Regular price:$ (Sale ends ) Available from: Condition: Good ! Order now!

Author

Leave a comment

Back to Top

Show Buttons
Hide Buttons