উত্তরাঞ্চলের ৮০ ভাগ ইটভাটারই নেই পরিবেশ ছাড়পত্র

উত্তরাঞ্চলের ৮০ ভাগ ইটভাটারই নেই পরিবেশ ছাড়পত্র

গাইবান্ধা, ঠাকুরগাওঁ, পঞ্চগড় 0 Comment

নর্দার্ণ ডেস্ক ।। উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলার প্রায় দেড় হাজার ইট-ভাটার মধ্যে ৮০ ভাগেরই নেই পরিবেশগত ছাড়পত্র। এসব ইটভাটাকে পরিবেশ বান্ধব ভাটায় রূপান্তরের সুযোগ দেয়া হলেও গত দুই বছরেও এতে তেমন সাড়া মেলেনি। এ অবস্থায় ইটভাটা সবুজ প্রকৃতি, ফসল, জীব-বৈচিত্র্য এবং মানুষের জীবনের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তর বলছে, ১ জুলাই থেকে আইন না মানা ভাটার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হবে। অন্যদিকে, ইট প্রস্তুতকারক মালিক সমিতির কর্মকর্তাদের দাবি, সরকারি নীতিমালা মেনে চলতে বাধা নেই, তবে, তা হতে হবে সুচিন্তিত।
চিমনী ইটভাটায় বেশীর ভাগ ফ্ল্যাই অ্যাশ বা পোড়া ছাই বাতাসের মাধ্যমে লোকালয়ে ছড়িয়ে পড়ে এবং পরিবেশ দূষণ করে। ফলে মানুষের বিভিন্ন রোগবালাই ও ফসলের ক্ষতি হয়। অন্যদিকে জিগজাগ কিলন ইটভাটায় ২৮ হর্স পাওয়ার শক্তিতে পানির সঙ্গে ফ্লাই অ্যাশের মিশ্রণে এক সময় তলানী জমে নীচে পড়ে। ফলে ভাটার পোড়া ছাই পরিবেশের ক্ষতি করতে পারেনা। তাই সরকার ড্রাম চিমনী ও ১২০ ফুট উচ্চতার চিমনীর ইটভাটাকে জিগজ্যাগ ইটভাটায় রূপান্তরের প্রজ্ঞাপন জারী করে ২ বছর আগে। ২০১৩ সালের ১৩ অক্টোবর জারি করা প্রজ্ঞাপনে দেশের সকল সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভা বা বর্ধিত এলাকা থেকে ৩০ জুন, ২০১৪ তারিখের মধ্যে সব ধরনের ইটভাটা অপসারণের নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত সরকারী এই প্রজ্ঞাপনের কোন কিছুই মানা হয়নি রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে। ফলে এসব ভাটা থেকে পরিবেশ দূষণে নানা রকমের ক্ষতির শিকার হচ্ছে ভাটা এলাকার জনগণ।
ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসী বলেন, “ধোঁয়ার কারণে ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের বিভিন্ন রোগবালাই দেখা দেয়। ধোঁয়ার কারণে বেশী ভাল ফলও হয় না।”
আর সমন্বয়ক উত্তরাঞ্চল ইট প্রস্ততকারক মালিক সমিতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, সরকারের পরিবেশ বান্ধব নীতিমালা মনে চলতে বাঁধা নেই তবে তা হতে হবে সুচিন্তিত ও সুনির্দিষ্ট।
এসময় ইটভাটার মালিক বলেন, সরকার ক্ষণে ক্ষণে নতুন প্রজ্ঞাপন জারী করায় এখন পথে বসতে হচ্ছে।
অন্যদিকে পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, ৩০ জুনের পর থেকে সরকারি আইন না মানা ভাটার বিরুদ্ধে অভিযান চলবে।
রাজশাহী পরিবেশ অধিদপ্তর বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক আলী রেজা মজিদ বলেন, “পরিবেশের ছাড়পত্র ছাড়াই যে ভাটাগুলি পরিচালিত হচ্ছে তাদেরকে অবহিত করার জন্য প্রচারপত্র বিতরণ অভিযান চলছে। যাতে সরকারের নতুন আইন মেনে তারা তাদের ইটভাটাগুলো আধুনিক প্রযুক্তিতে রূপান্তরিত করতে পারে।”
রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬টি জেলায় মোট ১৪৯০টি ইটভাটার মধ্যে মাত্র ৩৭০টি সরকারী নিয়ম মেনে চলছে। সবচেয়ে বেশী অবৈধ ইটভাটা রয়েছে বগুড়া জেলায় ১৫৩টি। এছাড়া সিরাজগঞ্জে ৭১, রাজশাহীতে ৬৭, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৮৩, নাটোরে ৪৯, পাবনায় ৬২, নওগাঁয় ১১৫ এবং জয়পুরহাটে ৩৫টি।
রংপুর বিভাগের দেড়শটি অবৈধ ইটভাটা রয়েছে দিনাজপুরে। এছাড়া রংপুরে ৯৩, ঠাকুরগাঁও জেলায় ৪২, পঞ্চগড়ে ২১, লালমনিরহাটে ১৮, নীলফামারীতে ২৮, গাইবান্ধায় ৪৫, কুড়িগ্রাম জেলায় ৩৩টি অবৈধ ইটভাটা রয়েছে।

Category: Product #: Regular price:$ (Sale ends ) Available from: Condition: Good ! Order now!

Author

Leave a comment

Back to Top

Show Buttons
Hide Buttons